শিরোনাম

ডিপ্রেশন কি কেনো হয়?

ইশরাত জাহান শারমীন | ১৮ জুন ২০২০ | ৭:৩৯ অপরাহ্ণ

ডিপ্রেশন কি কেনো হয়?

“আলু বেঁচো, ছোলা বেঁচো, বেঁচো বাখড়খানি, বেঁচো না বেঁচো না বন্ধু, তোমার চোখের মনি….। ঝিঙে বেঁচো পাঁচ সিকেতে, হাজার টাকায় সোনা, বন্ধু তোমার লাল টুকটুকে স্বপ্ন বেঁচো না…” প্রতুল মুখার্জির গাওয়া গানটাতে তিনি যথার্থই বলেছেন।

আমরা সব কিছু বেঁচলেও যেনো আমাদের স্বপ্নটাকে না বেঁচি। কারণ স্বপ্নহীন মানুষ কখনই বাঁচতে পারেনা। আর স্বপ্নহীনতাই হচ্ছে ডিপ্রেশন।

ভাবছেন ডিপ্রেশনটা কোনো ন্যাকামো ? না এটা মোটেও ন্যাকামো নয়। এটা একটা সমস্যা। আর এটা বহু মানুষের জীবনের সমস্যা। এটা ক্যান্সারের অথবা করোনার চাইতেও অধিক ভয়ঙ্কর রোগ। কমবেশি সব রোগেরই ঔষধ আছে বাট ডিপ্রেশনের কোন ঔষধ আজও সৃষ্টি হয়নি।

জীবনে কিছুই করতে পারেননি, ভাল ছাত্র হতে পারেননি, ভাল গায়ক হতে পারেননি, ভাল নায়ক হতে পারেননি, ভাল জীবন সঙ্গী পাননি। এই যে না পাওয়া, এ না পাওয়াগুলো থেকেই ডিপ্রেশনের সৃষ্টি হয়।

আর তারাই সুইসাইড করে

 যাদের স্বপ্নগুলো আর বেঁচে থাকেনা। বেঁচে থাকে স্বপ্নবাজরা। আজ যে মানুষগুলো বলেছে একসাথে চলবো, কালই এ মানুষগুলো পাশের মানুষটাকে ডিপ্রেশনে ফেলে চলে যায়। একবার ভাবেনা পাশের মানুষটার কথা। যে মানুষটা মানষিক অবসাদে ভোগে, একমাত্র সেই মানুষটাই জানে যে তার কষ্টটা কি ? পাশে থেকে ভরসা পাওয়ার হাত তখন চাইলেও খু্ঁজে পাওয়া যায়না।

সুশান্ত সিং রাজপুত এর মতো এরকম কতো মানুষ হাসিমুখে বুকে পাথর চাপা কষ্ট সহ্য করে আমাদের সামনে ঘুরে বেড়ায়। অথচ আমরা তার মনের খোঁজটুকুও রাখিনা।

তাই আমাদের স্বপ্নগুলোকে ছোট করতে হবে। স্বপ্নগুলো হবে আমাদের সকলের সাধ্যের মধ্যে। আর এমন স্বপ্ন দেখা যাবে না যা পরে বেঁচতে না হয়।

Facebook Comments

সংবাদ ও সাংবাদিকতা কি?

প্রবাসীদের ইউটিউব থেকে আয়

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১